সোমবার, ২৬ অক্টোবর ২০২০, ০২:১৯ পূর্বাহ্ন

মালয়েশিয়ায় তিন শতাধিক ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে সিলগালায় বিপদে বাংলাদেশি ব্যাবসায়ীরা

এখনই ডট কম ডেস্ক:
  • প্রকাশের সময়: বুধবার, ১০ জুন, ২০২০
  • ৪৫ বার দেখা হয়েছে

মালয়েশিয়ায় বিদেশিদের দ্বারা পরিচালিত তিন শতাধিক ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে সিলগালায় বিপদে পড়েছে বাংলাদেশিরা। সেই সঙ্গে রাজধানী কুয়ালালামপুর ও বিদেশি অধ্যুষিত জহর বারুরতে দেয়া হয়েছে নোটিশ। ইতোমধ্যেই সে দেশের সব থেকে বড় পাইকারি কাঁচাবাজারে বিদেশি অভিবাসীদের কাজ থেকে বিরত থাকতে বলা হয়েছে এবং সেখানে স্থানীয় নাগরিকদের কাজ করার জন্য লোভনীয় বেতনের ঘোষণা দেয় সে দেশের সরকার।

মালয়েশিয়ায় করোনা সংক্রমণ রোধে ১৮ মার্চ থেকে বিধি নিষেধ আরোপ করে সরকার। চলমান লকডাউনের মধ্যেই গত ৪ মে থেকে শর্ত সাপেক্ষে নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের দোকান ও শপিংমল খোলার অনুমতি দেয়া হয়। তবে একই সময় অভিযান শুরু করে বিদেশিদের পরিচালিত প্রতিষ্ঠানগুলোতে, যা করোনার এ দুর্যোগকালে কোনোভাবেই কাম্য ছিল না। আকস্মিক এ অভিযানে প্রবাসীরা সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন।

মধ্যপ্রাচ্যের পর বাংলাদেশের অন্যতম বড় শ্রমবাজার মালয়েশিয়া। বৈধ-অবৈধ মিলিয়ে সেখানে প্রায় ৮ লাখেরও বেশি বাংলাদেশি রয়েছেন। যাদের বড় অংশই শ্রমিক। অনেকেই ব্যবসার সঙ্গেও যুক্ত। অরেকটি অংশ, যারা সেকেন্ডহোম ও বিজনেস ভিসা নিয়ে ব্যবসা করছেন।

সরকারের কঠোর সিদ্ধান্তে এরই মধ্যে শিলগালা করে বন্ধ করে দেয়া হয়েছে ৩ শতাধিক বাংলাদেশির ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। এছাড়া রজধানী কুয়ালালামপুর ও জহুর বারু সিটি কর্পোরেশন বিদেশিরা ব্যবসা পরিচালনায় জারি করেছে নিষেধাজ্ঞা। আর এ সময় গ্রেপ্তার হয়ে যারা কারাগারে আছেন, তাদের কালো তালিকায় ঢুকে পড়ার আশঙ্কা রয়েছে।

রাজধানী কুয়ালালামপুরের প্রাণকেন্দ্রে লইয়াট প্লাজা। ইলেকট্রনিক্স ও আইটিসামগ্রীর এ মার্কেট সারা মালয়েশিয়াতে সুপরিচিত। এ মার্কেটে প্রায় সাড়ে ৫’শ ইলেকট্রনিক্স দোকান ও আইটি সামগ্রীর শো-রুমের মধ্যে বাংলাদেশি মালিকানাধীন দোকান রয়েছে প্রায় ২৫-৩০টি। দীর্ঘদিন ধরে ব্যবসা করছেন বাংলাদেশিরা। তবে মার্কেটটিতে বাংলাদেশি ব্যবসায়ীদের ভালো চোখে দেখছে না অন্যান্য দেশের ব্যবসায়ীরা। মার্কেটের ম্যানেজমেন্ট চলমান করোনা প্রতিরোধে বাংলাদেশি শ্রমিক ও মালিকদের রীতিমতো বিভিন্ন শর্তের জালে আটকে রেখেছে।

সম্প্রতি মালয়েশিয়ার অভিবাসন বিভাগের প্রধান দাতুক খায়রুল দাজায়মি দাউদ স্থানীয় গণমাধ্যমে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে বলেন, কুয়ালালামপুরসহ বিভিন্ন জায়গায় বিদেশি অভিবাসীরা ব্যবসা-বাণিজ্য খুলে পরিচালনা করছে, যা অভিবাসন আইনে অবৈধ। তাদের বিরুদ্ধেও অভিযান চলবে।

১০ জুন থেকে সে দেশে সব ব্যাবসা প্রতিষ্ঠান খোলার ঘোষণা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী তান সেরি মহিউদ্দিন ইয়াসিন। কিন্তু বাংলাদেশিদের ব্যাবসা প্রতিষ্ঠান (বিশেষ করে মুদি দোকান) বহু দোকান খোলার অনুমতি পাচ্ছে না তারা। তবে যারা সে দেশের নাগরিকদের সঙ্গে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়েছেন তাদের স্ত্রীরা যদি সবসময়ই দোকানে উপস্থিত থাকে তাহলে সমস্যা থাকছে না। কিন্তু যেসব বাংলাদেশি স্থানীয় নাগরিকদের নামে লাইসেন্স নিয়ে ব্যবসা বাণিজ্য করছে তারা রয়েছে বেকায়দায়।

স্যোশাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

এই ধরনের আরো সংবাদ

করোনা ভাইরাস থেকে সতর্ক থাকতে যা করনীয়ঃ

  • সবসময় হাত পরিষ্কার রাখুন। সাবান দিয়ে অন্তত পক্ষে ২০ সেকেন্ড যাবত হাত ধুতে হবে।
  • সাবান না থাকলে হেক্সিসল ব্যবহার করুন। হেক্সিসল না থাকলে হ্যান্ড সেনিটাইজার ব্যবহার করুন।
  • আক্রান্ত ব্যক্তি থেকে দূরে থাকুন, যতটুকু সম্ভব ভীড় এড়িয়ে চলুন।
  • বাজারে কিছু স্পর্শ করা থেকে বিরত থাকুন, করলে হাত সাবান দিয়ে ধুয়ে নিন।
  • টাকা গোনা ও লেনদেনের পর হাত সাবান দিয়ে ভালো করে ধুয়ে ফেলুন।
  • ওভার ব্রিজ ও সিড়ির রেলিং ধরে ওঠা থেকে বিরত থাকুন।
  • পাবলিক প্লেসে দরজার হাতল, পানির কল স্পর্শ করতে টিস্যু ব্যবহার করুন।
  • হাত মেলানো, কোলাকুলি থেকে বিরত থাকুন।
  • নাক, মুখ ও চোখ চুলকানো থেকে বিরত থাকুন।
  • হাঁচি কাশির সময় কনুই ব্যবহার করুন।
  • আপনি যদি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত না হয়ে থাকেন তবে মাস্ক ব্যবহার আবশ্যক নয় তবে আক্রান্ত হলে সংক্রমণ না ছড়াতে নিজে মাস্ক ব্যবহার করুন।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে আতঙ্কিত না হয়ে সতর্ক থাকুন। Stay Home, Stay Safe.

ইমেইল: news@akhone.com
কারিগরি সহযোগিতায়: নি-টেক
11223