সোমবার, ১০ অগাস্ট ২০২০, ০২:১৯ অপরাহ্ন

লাদাখে এখনও যুদ্ধের দামামা, শান্তি ফেরাতে উচ্চ পর্যায়ের বৈঠকে ভারত-চীন

এখনই ডট কম ডেস্ক:
  • প্রকাশের সময়: বৃহস্পতিবার, ১৮ জুন, ২০২০
  • ১৫ বার দেখা হয়েছে
দীর্ঘ আলোচনার পরও অধরাই থেকে যায় সমাধানসূত্র। ফলে বুধবার রাতেও লাদাখের সীমান্তে মুখোমুখিই দাঁড়িয়ে ছিল ভারত এবং চীনের সেনা।
বৃহস্পতিবার সকালে ফের চীনের সঙ্গে আলোচনার প্রক্রিয়া চালাচ্ছেন ভারতীয় সেনাবাহিনীর মেজর জেনারেল। বুধবার দিনভর কূটনৈতিক স্তরে চলল বিবাদ মেটানোর চেষ্টা। দিনের শেষে যদিও সীমান্তে উত্তেজনা সেই রয়েই যায়। রাত বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে দু’তরফের সক্রিয়তা আরও বাড়ার খবর আসে।এদিকে লাদাখে ভারতীয় সেনার ফরওয়ার্ড মুভমেন্ট বাড়ানো হয়েছে। সতর্ক করা হয়েছে চীনের নিশানায় থাকা বিমান ঘাঁটিগুলিকে। সতর্কতা হিসেবে খালি করা হচ্ছে চীন সীমান্ত সংলগ্ন ডেমচক এবং প্যাংগং লেকের আশপাশের গ্রামগুলি। সন্ধ্যার পর থেকে বিদ্যুৎহীন করে দেওয়া হয়েছে। বন্ধ টেলিফোন যোগাযোগ।এছাড়াও সেনাবাহিনীর সদস্যদের ছুটি বাতিল করা হচ্ছে। আরও বেশি করে আধা সামরিক বাহিনীর সদস্য নেয়া হচ্ছে লাদাখে। চীনের দিকেও সীমান্তের কাছে সাঁজোয়া গাড়ির ভিড় বাড়ছে বলেও একাধিক সূত্রের দাবি। তবে নতুন করে সংঘাতের কোনো খবর সীমান্ত থেকে আসেনি।

গালওয়ান উপত্যকায় হওয়া সংঘাতের ঘটনায় শুরু থেকেই ‘নরমে গরমে’ এগোনোর কৌশল নিয়েছে দুই প্রতিবেশী। তাই কড়া বার্তা বিনিময়ের সঙ্গে জারি আছে সামরিক স্তরে আলোচনা এবং ‘ট্র্যাক টু’ কূটনীতিও।

একদিকে সীমান্তে কথা বলে বিবাদ মেটানোর চেষ্টা করছেন দুই দেশের পদস্থ সামরিক কর্তারা, আবার অন্যদিকে ফোনে চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রী ওয়াং ই-র সঙ্গে এ দিন দীর্ঘক্ষণ আলোচনা করেন ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রী এস জয়শঙ্কর। যদিও কোনও আলোচনা থেকেই কিছু বের হয়নি।

গত সোমবার রাতে পূর্ব লাদাখের গালওয়ান উপত্যকায় হাতাহাতি থেকে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন ভারত ও চীনের সেনারা।সংঘর্ষে ভারতের একজন কর্নেল পদমর্যাদার সেনাসহ মোট ২৩ সেনাসদস্য নিহত হয়েছেন। এছাড়াও ভারতের পক্ষ থেকে দাবি করা হয় চীনের অন্তত ৪৩ সেনা নিহত অথবা গুরুতর আহত হয়েছে।

স্যোশাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

এই ধরনের আরো সংবাদ

করোনা ভাইরাস থেকে সতর্ক থাকতে যা করনীয়ঃ

  • সবসময় হাত পরিষ্কার রাখুন। সাবান দিয়ে অন্তত পক্ষে ২০ সেকেন্ড যাবত হাত ধুতে হবে।
  • সাবান না থাকলে হেক্সিসল ব্যবহার করুন। হেক্সিসল না থাকলে হ্যান্ড সেনিটাইজার ব্যবহার করুন।
  • আক্রান্ত ব্যক্তি থেকে দূরে থাকুন, যতটুকু সম্ভব ভীড় এড়িয়ে চলুন।
  • বাজারে কিছু স্পর্শ করা থেকে বিরত থাকুন, করলে হাত সাবান দিয়ে ধুয়ে নিন।
  • টাকা গোনা ও লেনদেনের পর হাত সাবান দিয়ে ভালো করে ধুয়ে ফেলুন।
  • ওভার ব্রিজ ও সিড়ির রেলিং ধরে ওঠা থেকে বিরত থাকুন।
  • পাবলিক প্লেসে দরজার হাতল, পানির কল স্পর্শ করতে টিস্যু ব্যবহার করুন।
  • হাত মেলানো, কোলাকুলি থেকে বিরত থাকুন।
  • নাক, মুখ ও চোখ চুলকানো থেকে বিরত থাকুন।
  • হাঁচি কাশির সময় কনুই ব্যবহার করুন।
  • আপনি যদি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত না হয়ে থাকেন তবে মাস্ক ব্যবহার আবশ্যক নয় তবে আক্রান্ত হলে সংক্রমণ না ছড়াতে নিজে মাস্ক ব্যবহার করুন।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে আতঙ্কিত না হয়ে সতর্ক থাকুন। Stay Home, Stay Safe.

ইমেইল: news@akhone.com
কারিগরি সহযোগিতায়: নি-টেক
11223